কবিতাঃ গোবর্ধনের প্রতি

গোবর্ধনের প্রতি

রাহাত জামিল

ভালোই তো দিন কাটছে গোবর্ধন!
খয়রাতি বিজয়ে নিজেকে শাহেনশাহ ভাবছো?
তা না হলে এক গাল হাওয়া গিলে ভোঁদাই ভোম্বলের মত
মুখ করে থাক কেন তুমি আর তোমার পিতা!
এখন আর
সাক্ষাতে চেনা আন্তরিকতা নেই!
চোখাচোখি হলে অস্থিরতা নেই!
পাশ কাটালে কুশলতা নেই!
গোবর্ধন বলে ডাক দিলে সাড়াশব্দ নেই!
আছে শুধু জয়ের দাম্ভিকতা আর অহমিকা।

আমি তো আঘাতের ক্ষতে প্রলেপ দিতে ব্যস্ত ছিলাম।
তখন সুযোগসন্ধানী কাপুরুষের মত জয়ী হয়ে,
নিজেকে বড়ো বীর ভাবছো?
বিজয়ের অহমিকায় এখন আর চিনছো না আমাকে!
প্রথম যুদ্ধে আমি যখন জিতেছিলাম,
কই আমি তো বদলে যায়নি!
আমি তো পারতাম তোমার মত;
তোমাকে দূরে সরিয়ে বিজয়ের ভেলায় নিজেকে ভাসিয়ে দিতে।
কিন্তু আমি তো পারিনি গোবর্ধন তোমার মত।

যুদ্ধ এখনও শেষ হয়নি গোবর্ধন,
আগামীতে যুদ্ধ এখনও বাকি আছে প্রতিপক্ষ হিসাবে।
শিরনাস্ত্র পরে রণক্ষেত্রে নেম;
উপদেশ নয় আদেশ দিলাম তোমার।
না হলে আমার তরবারির আঘাতে বিকলাঙ্গ হয়ে যেত পারো তুমি।
একটা কথা মনে রেখ গোবর্ধন,
একদা যে রাজা ছিল, সে সর্বদাই রাজা।

এশিয়াবিডি/ডেস্ক/কামরান 
আরও সংবাদ
error: You are under arrest !!