স্বামী সাংসারিক কাজ না করায় অভিমানে শিক্ষিকার আত্মহত্যা

মৌলভীবাজার সদর উপজেলায় মাছুমা মরিয়ম পারভিন (২৮) নামে এক স্কুলশিক্ষিকা সাংসারিক কাজে স্বামী অংশ না নেয়ায় অভিমান করে আত্মহত্যা করেছেন।

বৃহস্পতিবার (২৪ অক্টোবর) সন্ধ্যা ৬টার দিকে উপজেলার শেরপুর বাজারে নিজ বাসায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় তার মরদেহ উদ্ধার করেন পরিবারের সদস্যরা।
মাছুমা সিলেট ওসমানীনগর উপজেলার সাদিপুর এলাকার বাসিন্দা প্রাইমারি শিক্ষক জুনেদ আহমদের স্ত্রী। তিনি মৌলভীবাজার সদর উপজেলার ব্রাহ্মণগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা। তিনি স্বামীর সঙ্গে শেরপুর বাজারে ভাড়া বাসায় থাকতেন বলে জানা গেছে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মাছুমার স্বামী সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার লামা তাজপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। দু’জন চাকরিজীবী হওয়ায় সংসারের অভ্যন্তরীণ কাজ নিয়ে চাপে থাকতেন মাছুমা। স্কুলে ডিউটি শেষ করে বাসায় সব কাজ করতে হতো তার। স্বামীর কোনো সহযোগিতা পেতেন না তিনি। এ নিয়ে স্বামীর সঙ্গে মান-অভিমান ছিলো মাছুমার। সেই সূত্র ধরে বৃহস্পতিবার স্কুল ছুটির পর তিনি বাসায় এলে স্বামীর বাসায় ফিরতে দেরি হওয়ায় অভিমান করেন। স্বামীকে বাসায় আসার জন্য বারবার ফোন করেন, কিন্তু তিনি মিটিংয়ে আছেন বলে জানান। একসময় মাকে ফোন দিয়ে জানান তিনি সংসার করতে পারবেন না বাবার বাড়িতে চলে যাবেন। এরপর মোবাইল ফোন বন্ধ করে তিনি আত্মহত্যার পথ বেছে নেন। সন্ধ্যা ৭টার দিকে পরিবারের সদস্যরা বাসায় এসে তার ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পান।
মাছুমার মা মমতাজ বেগম এশিয়াবিডি২৪

কে বলেন, আমার মেয়ে সারাদিন স্কুলের ডিউটি শেষ করে একা পরিবারের সব কাজ করতে পারতো না। স্বামীর সঙ্গে এ নিয়ে ক্ষোভ ছিলো তার। এর জের ধরে বৃহস্পতিবার বিকেলে সে বাবার বাড়ি চলে যেতে চেয়েছিল। এরপর তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। পরে জানতে পারি মেয়ে আত্মহত্যা করেছে।
মৌলভীবাজার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন বলেন, আমরা প্রাথমিকভাবে জেনেছি যে, ওই স্কুলশিক্ষিকা স্বামী বাসায় ফিরতে দেরি করায় অভিমান করে আত্মহত্যা করেছেন। মরদেহের সুরতহাল করা হয়েছে। বিস্তারিত পরে জানা যাবে।

আরও সংবাদ
error: You are under arrest !!